বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০

অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার (Asthenosphere)

 অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার (Asthenosphere) বা ক্ষুব্দমন্ডল কি? অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার (Asthenosphere) বা ক্ষুব্দমন্ডল কাকে বলে? অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার এর বৈশিষ্ট্য।


    ভূত্বকের নিচে এবং গুরুমন্ডল এর উপরিভাগে অবস্থিত একটি বিশেষ স্তর অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার। এই স্তরের উপর ভূত্বকের অংশগুলো ভাসমান অবস্থায় থাকে।
       অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার(Asthenosphere) শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ এস্থেনে(astheniea) অর্থাৎ দুর্বল এবং স্ফিয়ার (sphere) অর্থাৎ মন্ডল শব্দ দু'টি থেকে, যার অর্থ দুর্বল মন্ডল


অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার (Asthenosphere) কাকে বলে? 

           ভূপৃষ্ঠ থেকে 60-200 কিলোমিটার অভ্যন্তরে (মতান্তরে 200-700 কিলোমিটার) গুরুমন্ডল এর উপরের স্তরে যে থকথকে, সান্দ্র এবং প্লাস্টিকের মত দুর্বল স্তর রয়েছে তাকে অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার বা ক্ষুব্দমন্ডল বলে।


অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার এর বৈশিষ্ট্য।

            অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার এর বৈশিষ্ট্য নিম্নে আলোচিত হল।

গভীরতা

       ভূপৃষ্ঠ থেকে 60-200 কিলোমিটার মতান্তরে 200-700 কিলোমিটার।

প্রকৃতি

        অত্যধিক তাপমাত্রা এবং চাপের ফলে এই অঞ্চল স্থিতিস্থাপক এবং থকথকে।

তাপমাত্রা

        তেজস্ক্রিয় পদার্থ যেমন ইউরেনিয়াম থোরিয়াম প্রভৃতি নির্গমনের জন্য এই স্তরের উষ্ণতা রয়েছে প্রায় 1600°সেলসিয়াস।

ভূমিকম্প তরঙ্গের গতি

         স্তরটি সান্দ্র হওয়ার জন্য ভূমিকম্প তরঙ্গ P ও S এর গতি এই স্তরে এসে কমে যায় এই কারণে এই স্তরকে Low Velocity Zone বলে।

ভাসমান পাত

         ভূত্বকে অবস্থিত মহাদেশীয় এবং মহাসাগরীয় পাত অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার এর উপরে ভাসমান অবস্থায় রয়েছে।

কার্য

      অগ্ন্যুদগম অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার থেকে সংগঠিত হয় বলে একে ক্ষুব্দমন্ডল বলে।


অ্যাস্থেনোস্ফিয়ারকে ক্ষুব্দমন্ডল বলে কেন?

     
               অ্যাস্থেনোস্ফিয়ার এর পদার্থ সমূহ চাপ, তাপ,  আণবিক বিকিরণ প্রভৃতির তারতম্যের ফলে ম্যানমার সৃষ্টি হয়। এই স্তরের মধ্যে ম্যাগমার পরিচলন স্রোতের সৃষ্টি হয়। পরিচলন স্রোতের প্রভাবে ভূত্বকের অংশ কোথাও প্রসারিত হয় এবং কোথাও সংকুচিত হয়। প্রসারণ বা সংকোচনের ফলে ভূত্বকে সৃষ্ট ফাটল বা ছিদ্রপথ দিয়ে ভূ-অভ্যন্তরের ম্যাগমা লাভা রূপে বেরিয়ে আসে এবং ভূমিকম্প, অগ্নুৎপাত, পাত সঞ্চালন প্রভৃতি ভূ-গাঠনিক প্রক্রিয়া গুলি সম্পন্ন হয়। এই কারণের জন্য অ্যাস্থেনোস্ফিয়ারকে ক্ষুব্দমন্ডল বলে।
         

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Monsoon Though (মৌসুমী ট্রাফ)//Break of Monsoon বা বৃষ্টিপাতের ছেদ//Onset Vortex//N.L.M.(Normal Limit of Monsoon)

 Monsoon Though (মৌসুমী ট্রাফ) কি?       বিস্তীর্ণ অঞ্চলজুড়ে নিম্নচাপ অবস্থান করলে তাকে Though বলে। মৌসুমী বায়ু ভারতে আগমনের পূর্বে 5 ডিগ...